1. mahadihasaninc@gmail.com : admin :
  2. hossenmuktar26@gmail.com : Muktar hammed : Muktar hammed
সৃজণশীলতার আঁতুড় ঘর ‘বিউটি বোর্ডিং’ এখন কেবলই ইতিহাস - dailybanglakhabor24.com
  • May 7, 2024, 5:15 am

সৃজণশীলতার আঁতুড় ঘর ‘বিউটি বোর্ডিং’ এখন কেবলই ইতিহাস

  • Update Time : রবিবার, জুন ১১, ২০২৩ | সকাল ১১:১৫
  • 55 Time View

মোহাম্মদ সেলিম মিয়া

এদেশের ইতিহাসের সাথে মিশে আছে ঢাকা। আর ঢাকার সাথে মিশে আছে বিউটি বোর্ডিং। এটি শুধু আবাসিক হোটেলই নয়, শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি ও রাজনীতির ইতিহাসের এক কালের স্বাক্ষী। কবি,সাহিত্যিক,শিল্পী, অভিনেতা,রাজনীতিবিদ ও চলচ্চিত্রকারদের অবাধ বিচরণ ও আড্ডার প্রাণকেন্দ্র ছিল এই বিউটি বোর্ডিং। পুরান ঢাকার ভিক্টোরিয়া পার্ক পার হয়ে বাংলা বাজারে প্রবেশ করে একটু এগুলেই বুড়িগঙ্গার তীরের শ্রীশচন্দ্র লেন। আর এই শ্রীশচন্দ্র লেনের ১ নাম্বার বাড়িতে অবস্থিত বিউটি বোর্ডিং। সাইন বোর্ড পেরিয়ে ছোট গেট দিয়ে হলুদ রঙের দোতলা বাড়িটির আঙিনায় প্রবেশ করার পর যেকোন সৌন্দর্য্যপিয়াসি মানুষের নয়ন জুড়িয়ে যাবে এর অবারিত সৌন্দর্য্য।ে প্রাচীন আমলের গাঁথুনি মুহূর্তেই যে কাউকে নিয়ে যাবে একশ বছর পেছনে। মাঝখানে প্রশস্ত উঠোন। ফুলের বাগান দিয়ে ঘেরা। বেশ আড্ডার জায়গা। পাশে খাবার ঘরের দেয়ালে টাঙানো আছে প্রাচীন আড্ডার কয়েকটি ছবি। এরপর শোবারঘর, পেছনে সিঁড়িঘর সবই গল্পের বইয়ে লেখা প্রাচীন জমিদার বাড়ির বর্ণনার মতো। প্রসারিত উঠোনের মাঝে ফুলবাগান আর এক কোনায় শামসুর রাহমান স্মৃতিফলক যে কাউকে আকৃষ্ট করবে। একটু সামনে এগুলেই দেখা যাবে মুক্তিযুদ্ধের ১৭জন শহীদের নামফলক। এতে করে আনন্দের উদ্বেলতায় মুহুর্তেই নীরবতা নেমে আসবে। শোকের পরিবেশে শ্রদ্ধা আর আবেগে মুক্তিযুদ্ধের ক্যানভাস চিত্রিত হবে আগতদের মানসপটে। শিল্প-সাহিত্য ও সংস্কৃতির এক সময়ের মিলনক্ষেত্রে মুক্তিযুদ্ধের দিনগুলিতে হারিয়ে যাবে দর্শনার্থীরা। কবি-সাহিত্যিক,শিল্পী,অভিনেতা,চলচ্চিত্রকার,রাজনীতিবিদ ও মুক্তিযোদ্ধাদের পদভারে একসময় মুখরিত ছিল এই বিউটি বোর্ডিং। এটি শুধু একটি প্রতিষ্ঠানই নয়, প্রযুক্তির এই সময়ে বুড়িগঙ্গার তীরে দাঁড়িয়ে থাকা নষ্টালজিয়ার এক ঐতিহাসিক স্থাপনা। নান্দনিক সৌন্দর্য্যরে স্থাপনা নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকলেও কালের বিবর্তনে হারিয়ে গেছে এর জৌলুস। জন্মলগ্ন থেকেই এখানে আড্ডা দিতেন প্রথিতযশা কবি, সাহিত্যিক, বুদ্ধিজীবী, শিল্পী, সাংবাদিক, চিত্রপরিচালক, নৃত্যশিল্পী, গায়ক, অভিনেতাসহ বিভিন শ্রেণী-পেশার মানুষ। এক সময় প্রমত্তা বুড়িগঙ্গার ভরা যৌবনের মতোই বর্ণাঢ্য ছিল বিউটি বোর্ডিংয়ের সেসব দিনগুলো। বুড়িগঙ্গার তীরে জাহাজের হুইসেলের ধ্বনি আর নদীর কলকল শব্দে কবি-সাহিত্যিকদের কলম থেকে বের হতো সৃজণশীলতা। আজ বুড়িগঙ্গাও তার স্রোত হারিয়েছে আর বিউটি বোর্ডিংও হারিয়েছে এর জৌলুস। নতুন প্রজন্মের নাগরিকদের কাছে খুব চেনাজানা না হলেও বোদ্ধামহল ও সুধীজনদের কাছে এর কদর একটুও কমেনি। যার কারণে এখনও একটু সময় পেলেই অনেকেই এখানে ছুটে আসেন। মূলতঃ চল্লিশের দশকেই পুরান ঢাকায় খ্যাতি লাভ করে বিউটি বোর্ডিং। স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, কবি শামসুর রাহমান, সৈয়দ শামসুল হকসহ অনেক বিখ্যাত মানুষ এখানে আসতেন। এসেছিলেন পল্লীকবি জসীমউদ্দিন আর নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসুও। আবদুল জব্বার খান এখানে বসেই লিখেছিলেন বাংলার প্রথম সবাক ছবি ‘মুখ ও মুখোশ’এর পান্ডুলিপি। এরপর ‘কাঁচের দেয়াল’ চলচ্চিত্রের পান্ডুলিপিও এখান থেকে তৈরি হয়। ১৯৫৭ সালে কবি ফজল শাহাবুদ্দিন এখান থেকেই প্রকাশ করেন সাহিত্য পত্রিকা ‘কবিকণ্ঠ’, ১৯৫৯ সালে আহমদ ছফার সাহিত্য পত্রিকা ‘স্বদেশ’ এর উত্থানও এই বিউটি বোর্ডিং থেকেই। জাদুকর জুয়েল আইচের সূচণাও এখানেই। আর সুরকার সমর দাস বহু গানের সুর তৈরি করেছেন এখানে বসে। এই বিউটি বোর্ডিং নিয়েই শামসুর রাহমান লিখেছেন- ‘মনে পড়ে একদা যেতাম প্রত্যহ দুবেলা বাংলা বাজারের শীর্ণ গলির ভেতরে সেই বিউটি বোর্ডিং-এ পরষ্পর মুখ দেখার আশায় আমরা কজন’। ১৯৫৭ সাল থেকে ৬২ সাল পর্যন্ত এখানে বসেই লেখালেখি করতেন সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক। বরেণ্যদের কাছে আজ এটি এটি স্মৃতির পটে আঁকা এক চিত্রকল্প, এক কষ্টের হাহাকার। ঐতিহ্য ঠিকই আছে, এখনই ঠাঁয় দাঁড়িয়ে থেকে জানান দিচ্ছে নিজের উপস্থিতি। কালের বিবর্তনে স্বর্ণালী সময়গুলো এখন কেবলই ইতিহাস।

প্রতিষ্ঠার ইতিহাস
বিউটি বোর্ডিং বাড়িটি ছিল নিঃসন্তান জমিদার সুধীর চন্দ্র দাসের। চল্লিশের দশকে বাংলাবাজারকে ঘিরেই গড়ে উঠে প্রকাশনাশিল্প। আর প্রকাশনাশিল্পকে কেন্দ্র করে ১৯৪৭ সালে ভারত বিভাগের পূর্বে সেখানে ছিল সাপ্তাহিক ‘সোনার বাংলা’ পত্রিকার অফিস। কবি শামসুর রাহমানের প্রথম কবিতা ছাপা হয়েছিল এ পত্রিকাতেই। দেশভাগের সময় পত্রিকা অফিসটি কলকাতায় স্থানান্তরিত হয়। এরপর ১৯৪৯ সালে দুই ভাই প্রহ্লাদ চন্দ্র সাহা ও নলিনী মোহন সাহা এই বাড়িতে গড়ে তোলেন আবাসিক ও খাবার হোটেল বিউটি বোর্ডিং। ১১ কাঠা জমির উপর প্রতিষ্ঠিত বিউটি বোর্ডিংয়ের নামকরণ করা হয় নলিনী সাহার বড় মেয়ে বিউটির নামে। একাত্তরের অগ্নিঝরা দিনগুলিতে এই বিউটি বোর্ডিং হয়ে উঠে মুক্তিযোদ্ধাদের মিলনস্থল। আর সেই বিষয়টি জানতে পেরে ১৯৭১ সালের ২৮ মার্চ বিউটি বোর্ডিংয়ে হামলা চালায় পাকবাহিনী। আর নারকীয় সেই হামলায় শহীদ হন এর অন্যতম কর্ণধার প্রহ্লাদ চন্দ্র সাহাসহ ১৭ জন। এরপরই বিউটি বোর্ডিংয়ের আড্ডা হারিয়ে যায়। পরবর্তীতে প্রহ্লাদ চন্দ্রের পরিবার ভারত চলে যায়। স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে প্রহ্লাদ চন্দ্রের স্ত্রী প্রতিভা সাহা দুই ছেলে সমর সাহা ও তারক সাহাকে নিয়ে বিউটি বোর্ডিং পুনরায় চালু করেন। বিউটি বোর্ডিংয়ের আড্ডা আগের মতো না থাকলেও খাবার ঘরে এখনো ভোজনরসিকদের ভিড় লেগেই থাকে। নগরের ভোজনরসিকরা এখানে ছুটে আসেন। ঐতিহ্য ধরে রাখতে ভোজনরসিকদেরকে আজও এখানে স্টিলের থালায় ও গ্লাসে খাবার ও পানি পরিবেশন করা হয়। সকালে নাস্তা,দুপুরে ভাত, বিকেলে সুস্বাদু লুচি ও রাতেও রয়েছে খাবারের ব্যবস্থা। বিউটি বোর্ডিংয়ে ছোট বড় মিলিয়ে কক্ষ রয়েছে ২৫টি। একমাত্র বড় রুমের ভাড়া ১২০০টাকা আর সিঙ্গেল রুমের ভাড়া ২০০ থেকে ৩০০ টাকার মধ্যে। স্বল্প খরচে থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা থাকলেও এখানকার বেশিরভাগ কক্ষই খালি থাকে। বলার অপেক্ষা রাখেনা যে, সময়ের পরিক্রমায় নতুন নতুন সাজে সজ্জিত হচ্ছে তিলোত্তমা রাজধানী ঢাকা। কিন্তু ঢাকা তথা বাংলাদেশের ঐতিহ্য বিউটি বোর্ডিং যেন আধুনিকতার উত্থানে পিছিয়ে পড়া এক ঐতিহ্য। সেই ৭৫ সাল থেকে বিউটি বোর্ডিংয়ের সাথে সম্পৃক্ত আছেন এর ম্যানেজার বিজয় পোদ্দার। গত ৪৪ বছরে কাছ থেকে দেখছেন প্রতিষ্ঠানটিকে। কথা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সেই ছাত্রাবস্থা থেকেই প্রতিষ্ঠানটির সাথে জড়িত আছি। অনেক কিছুই দেখেছি। অনেক ভালো সময় পার করেছি। একসময় মতিঝিল, সচিবালায়সহ অনেক এলাকা থেকেই মানুষ এখানে এসে থাকতো। কিন্তু এখন শুধু বাংলাবাজার আর শ্যামবাজারের স্বল্প আয়ের মানুষেরা ছাড়া অন্য কেউ খুব একটা আসে না। ২৫টি রুমের মধ্যে বেশিরভাগই খালি থাকে। দিনের পর দিন লোকসান দিয়েও শুধুমাত্র ঐতিহ্য ধরে রাখতেই প্রতিষ্ঠানটিকে টিকিয়ে রাখা হয়েছে। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা না পেলে বেশি দিন টিকিয়ে থাকা যাবে না বলেও জানান বিজয় পোদ্দার। নিজের মজার অভিজ্ঞতার বিষয়ে তিনি বলেন, একবার এখানে থাকতে এসেছিলেন পল্লীকবি জসীমউদ্দিন। নিজের পরিচয় দেয়ার পরেও আমি তাকে চিনতে পারিনি। আর তখন তিনি তার ‘কবর’ কবিতাটির কিছু অংশ আমাকে পড়ে শোনান। এই বিষয়টি এখনও আমাকে শিহরিত করে। দেশবরেণ্য কবি-সাহিত্যিক-শিল্পী-রাজনীতিবিদদের সাথে এরকম আরও অনেক স্মৃতি আছে।

যাদের পদভারে মুখরিত ছিল
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু, পল্লীকবি জসীমউদ্দিন, কবি শামসুর রাহমান, রণেশ দাশগুপ্ত, ফজলে লোহানী, আবু হেনা মোস্তফা কামাল, শিল্পী দেবদাস চক্রবর্তী, কাইয়ুম চৌধুরী, সমরজিৎ রায় চৌধুরী, ভাস্কর নিতুন কুন্ডু,ব্রজেন দাস, হামিদুর রহমান, বিপ্লব দাশ, আবুল হাসান, মহাদেব সাহা, আহমেদ ছফা, হায়াৎ মামুদ, সত্য সাহা, এনায়েত উল্লাহ খান, আল মাহমুদ, আল মুজাহিদী, আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ, মুনতাসীর মামুন,ফতেহ লোহানী, জহির রায়হান, খান আতা, নারায়ন ঘোষ মিতা, আখতারুজ্জামান ইলিয়াস, সৈয়দ শামসুল হক, জিল্লুর রহমান সিদ্দিকী, নির্মল সেন, ফয়েজ আহমদ, গোলাম মুস্তাফা, খালেদ চৌধুরী, সমর দাস, ফজল শাহাবুদ্দিন, সন্তোষ গুপ্ত, আনিসুজ্জামান, নির্মলেন্দু গুণ, বেলাল চৌধুরী, শহীদ কাদরী,ইমরুল চৌধুরী, সাদেক খান, ড. বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীর, শফিক রেহমান, ভাষাসৈনিক গাজীউল হক, কমরেড আবদুল মতিন, অলি আহাদ, সাইফুদ্দীন মানিক, আবদুল গাফফার চৌধুরী,মহিউদ্দিন আহমেদ, আসাদ চৌধুরী, সিকদার আমিনুল হক, জুয়েল আইচ,অভিনেতা ভানু বন্দোপাধ্যায়, চলচ্চিত্রকার আব্দুল জব্বার খান প্রমুখ।

বিউটি বোর্ডিং সম্মাননা
১৯৪৯ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে ৭১ সাল পর্যন্ত টানা বাইশ বছর কবি-সাহিত্যিক-শিল্পী,রাজনীতিকদের মিলনমেলায় পরিণত হয়েছিল বিউটি বোর্ডিং। এরপর ১৯৭১ সালের উত্তাল সেই দিনগুলির ২৮ মার্চ ১৭জন মুক্তিযোদ্ধাকে খুন করার পর দৃশ্যপট পাল্টে যায়। স্বাধীনতার পর নতুন করে যাত্রা শুরু করলেও স্বর্ণালী দিন আর ফিরে আসেনি। এরপর ১৯৯৫ সালে সাবেক বিউটিয়ানদের নিয়ে গঠিত হয় বিউটি বোর্ডিং সুধী ট্রাস্ট। আর ২০০৩ সালে কবি ইমরুল চৌধুরীকে আহবায়ক ও সদ্যপ্রয়াত তারক সাহাকে সদস্যসচিব করে ৬০ সদস্যবিশিষ্ট ট্রাস্টি বোর্ড গঠণ করা হয়। আর এই ট্রাস্টি বোর্ডের মাধ্যমে ২০০৫ সাল থেকে প্রদান করা হচ্ছে ‘বিউটি বোর্ডিং সম্মাননা’। স্ব-স্ব ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ প্রতিবছর এক/বা একাধিক ব্যক্তিকে এই সম্মাননা প্রদান করে হয়ে থাকে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category