1. mahadihasaninc@gmail.com : admin :
  2. hossenmuktar26@gmail.com : Muktar hammed : Muktar hammed
নতুন কারিকুলাম বাতিলসহ অভিভাবকদের ৮ দাবি - dailybanglakhabor24.com
  • May 10, 2024, 6:54 am

নতুন কারিকুলাম বাতিলসহ অভিভাবকদের ৮ দাবি

  • Update Time : শুক্রবার, নভেম্বর ১০, ২০২৩ | দুপুর ১২:৫৪
  • 22 Time View

অনলাইন ডেস্ক
শিক্ষানীতি বিরোধী নতুন কারিকুলাম সম্পূর্ণ বাতিল ও পরীক্ষা পদ্ধতি চালুসহ ৮ দফা দাবিতে সংবাদ সন্মেলন করেছে সম্মিলিত শিক্ষা আন্দোলন। শুক্রবার বেলা ১১টায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে সন্মিলিত শিক্ষা আন্দোলনের সমন্বয়ে শিক্ষার্থী অভিভাবক ফোরাম এসব দাবি তুলে ধরে।
সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, ত্রিভুজ চিহ্ন বাতিল করে পূর্বের ন্যায় নম্বর ও গ্রেডভিত্তিক মূল্যায়ন পদ্ধতি করা হোক। আমরা মনে করি, বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপটে নতুন এই কারিকুলামটি এ দেশের জন্য অনুপযুক্ত।
নতুন এই কারিকুলাম সংস্কার করে অন্তত ৫০/৬০ নম্বরে দুই সাময়িক লিখিত পরীক্ষা পদ্ধতি চালু, নম্বর ও গ্রেডভিত্তিক মূল্যায়ন করা হোক। প্রতি বছর প্রতি ক্লাসে রেজিস্ট্রেশন ও সনদ প্রদানের সিদ্ধান্ত বাতিল, স্কুল পিরিয়ডে সমস্ত প্রোজেক্ট সম্পন্নকরণ এবং সমস্ত ব্যবহারিক ব্যয় স্কুলকে বহন করার দাবি জানান তারা।
বক্তারা আরো বলেন, এই কারিকুলাম অনুযায়ী নবম শ্রেণিতে গিয়ে শিক্ষার্থীদের আগ্রহ অনুযায়ী বিভাগ বা বিষয় বেছে নেওয়ার সুযোগ আর থাকছে না। পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন ও জীববিজ্ঞান মিলিয়ে একটি বিজ্ঞান বই এবং উচ্চতর গণিত ও গণিত মিলিয়ে একটি গণিত বই সবার পাঠের জন্য বানানো হয়েছে।
ফলে বিজ্ঞানে আগ্রহী শিক্ষার্থীরা এখন আগের চেয়েও কম বিজ্ঞান ও গণিত শিখবে এবং আমাদের আশঙ্কা তারা উচ্চশিক্ষায় গিয়ে ব্যর্থ হবে।
তারা বলেন, এই কারিকুলামে সাময়িক পরীক্ষার মতো লিখিত পরীক্ষা নেই, রয়েছে প্রতিদিনের শেখার মূল্যায়ন এবং সামষ্টিক মূল্যায়নের নামে রয়েছে দলগত কাজ, প্রোজেক্ট বা এসাইনমেন্ট। এগুলো কীভাবে করতে হবে তার কিছুই শিক্ষার্থীরা বুঝতে পারছে না, শিক্ষকও বুঝতে পারছেন না। এক-এক সময়ে এক-এক রকম নির্দেশনা আসছে।
অপর্যাপ্ত শিক্ষক আর ঘিঞ্জি ক্লাসের মধ্যে অতিরিক্ত শিক্ষার্থী নিয়ে ক্লাস বা মূল্যায়ন কিছুই সঠিকভাবে হচ্ছে না। ফলে অভিভাবকদেরও বাড়তি টাকা ও সময় ব্যয় হচ্ছে।
অভিভাবকরা বলেন, এখন ফলাফল নির্ধারণ হবে শুধু চিহ্ন পদ্ধতিতে, অর্থাৎ ত্রিভুজ, চতুর্ভুজ ও বৃত্ত নির্দেশ করে। এগুলোতে শিক্ষার মানের কি উন্নতি হয় আমরা জানি না, বরং জটিলতা তৈরি করছে। এর ফলে অনেক স্কুলে অনৈতিক চর্চা ও দুর্নীতি বাড়ছে।
শিক্ষার্থীরা হতাশ হচ্ছে এবং মানসিকভাবে ভেঙে পড়ছে। তারা বলেন, এই কারিকুলাম ও পাঠ্যবইয়ে কী আছে তার চেয়ে বড় বিষয় হলো, কী হচ্ছে বা কী ঘটছে। এই কারিকুলামের ফলে শুধু শিক্ষার্থীরা নয়, তাদের সঙ্গে তাদের অভিভাবক এবং শিক্ষকরাও চরম নৈরাজ্যকর এক পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছেন। আমরা এ অবস্থা থেকে রেহাই চাই।
সন্মিলিত শিক্ষা আন্দোলনের ৮ দফা দাবি :
১. শিক্ষানীতি বিরোধী নতুন কারিকুলাম সম্পূর্ণ বাতিল করতে হবে।
২. নাম্বারভিত্তিক ২টা সাময়িক লিখিত পরীক্ষা (৬০ নাম্বার) চালু রাখতে হবে এবং ফ্রাসটেস্টগুলোকে ধারাবাহিক মূল্যায়ন (৪০ নাম্বার) হিসাবে ধরতে হবে।
৩. নবম শ্রেণি থেকেই শিক্ষার্থীর আগ্রহ অনুযায়ী বিষয় নির্বাচনের সুযোগ অথবা বিজ্ঞান বিভাগ রাখতে হবে।
৪. ত্রিভুজ, বৃত্ত, চতুৰ্ভুজ ইত্যাদি নির্দেশক বা ইন্ডিকেটর বাতিল করে নাম্বার ও গ্রেড ভিত্তিক মূল্যায়ন পদ্ধতি রাখতে হবে।
৫. শিখন ও অভিজ্ঞতাভিত্তিক ক্লাসের ব্যয় সরকারকে বহন করতে হবে এবং স্কুল পিরিয়ডেই সব প্রোজেক্ট সম্পন্ন হতে হবে।
৬. শিক্ষার্থীদের দলগত ও প্রোজেক্টের কাজে ডিভাইসমুখী হতে অনুৎসাহিত করতে হবে এবং তাত্ত্বিক বিষয়ে অধ্যয়নমুখী করতে হবে।
৭. প্রতি বছর প্রতি ক্লাসে নিবন্ধন ও সনদ প্রদানের সিদ্ধান্ত বাতিল করতে হবে, প্রাথমিক ও জুনিয়র বৃত্তি পরীক্ষা চালু রাখতে হবে এবং এসএসসি ও এইচএসসি ২টা পাবলিক পরীক্ষা বহাল রাখতে হবে।
৮. সব সময়ে সব শ্রেণিতে নতুন কারিকুলাম বাস্তবায়নের আগে অবশ্যই তা মন্ত্রী পরিষদ এবং সংসদে উত্থাপন করতে হবে।
এসময় তারা আগামী ১৪ নভেম্বর সকাল ১১টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত সারাদেশের সব স্কুলের সামনে অভিভাবক সমাবেশ ও ডিসি বরাবর স্মারকলিপি প্রদান ও ২৪ নভেম্বর সকাল ১০টায় শহীদ মিনারে অভিভাবক সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা দেন।
সংবাদ সন্মেলনে সন্মিলিত শিক্ষা আন্দোলনের সমন্বয়ক জাহাঙ্গীর কবিরের সঞ্চালনায় লেখক ও গবেষক রাখাল রাহার সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের শিক্ষার্থী অভিভাবক কমিটির সদস্য শেখ সাইফুর রহমানসহ বিভিন্ন অভিভাবকরা।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category