1. mahadihasaninc@gmail.com : admin :
  2. hossenmuktar26@gmail.com : Muktar hammed : Muktar hammed
কোরআন শিক্ষায় নিবেদিতপ্রাণ এক মনীষী - dailybanglakhabor24.com
  • June 7, 2024, 7:21 am

কোরআন শিক্ষায় নিবেদিতপ্রাণ এক মনীষী

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ৬, ২০২৩ | দুপুর ১:২১
  • 66 Time View

মুফতি এনায়েতুল্লাহ

কারি আবদুল খালিক। এক নামে তাকে ঢাকার আলেমরা চেনেন। হাজার হাজার আলেমের ওস্তাদ। কোরআন শিক্ষায় নিবেদিত শ্যামবর্ণের মানুষটির জীবন ত্যাগ ও সাধনার। দুনিয়াবিমুখ এই মনীষীর জীবনের পরতে পরতে মিশে আছে আল্লাহর ওপর অগাধ বিশ্বাস। যে বিশ্বাসের দ্যুতি তার জীবনের কর্মশক্তি। লিখেছেন মুফতি এনায়েতুল্লাহ

ধর্মপ্রাণ হিসেবে বাংলাদেশের মানুষের সুনাম রয়েছে। বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক কাজে দ্বীন দরদি মানুষের অংশগ্রহণ ঈর্ষণীয়। সাধারণ সম্পদশালীরা তাদের সম্পত্তির কিছু অংশ মসজিদন্ডমাদ্রাসা, খানকা-ঈদগাহ ও গোরস্তানসহ বিভিন্ন জনসেবামূলক কাজে দান করে থাকেন। এর ব্যতিক্রম দৃষ্টান্তও আছে। রয়েছে আল্লাহর ওপর ভরসা করে ঘর-বাড়িসহ ভিটেমাটি দান করার নজির। ইসলামের প্রচার-প্রসার আর কোরআন-হাদিস শিক্ষার জন্য এমন নিবেদিতপ্রাণ মানুষ আছেন বলেই এখনো দুনিয়ার বুকে ইসলাম টিকে আছে। দুনিয়ার কোনো স্বার্থ নয়, একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টি হাসিলের নিমিত্তে এমন আত্মত্যাগের ঘটনা সমাজে বিরল। কখনো তা ইতিহাসে পাতায় লেখা হয়, আবার কখনো তা থাকে অনুচ্চারিত।

আজ এমনই এক মহৎপ্রাণ মানুষের কথা আলোচনা করব, যিনি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার জন্য উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত নিজের ভিটেমাটিসহ একমাত্র ঘরটি ওয়াকফ করে দিয়েছিলেন। আলোকিত এই মানুষের নাম হাফেজ কারি আবদুল খালিক আসআদী।

কারি আবদুল খালিকের জন্ম বর্তমান বাগেরহাট জেলার মোরেলগঞ্জে ১৯৩৮ সালে। পিতা মৌলভী আরশাদ আলী (রহ.)। ১২ বছর বয়সে তিনি মাকে হারান। মাতৃবিয়োগের শোক তাকে দ্বীনের পথে আসতে অনুপ্রেরণা দেয়। গ্রামের মক্তবে প্রাথমিক শিক্ষা শেষে মোরেলগঞ্জ রাজৈর সিনিয়র মাদ্রাসায় কিছুদিন পড়ালেখা করেন। পরে ভগ্নিপতি মরহুম মাওলানা ইউসুফের হাত ধরে আলিয়া মাদ্রাসা ছেড়ে দক্ষিণবঙ্গের অন্যতম দ্বীনি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গোপালগঞ্জের গওহরডাঙ্গা মাদ্রাসায় ভর্তি হন। সেখানে কিছুদিন পড়াশোনা শেষে ঢাকার ফরিদাবাদ মাদ্রাসায় ভর্তি হয়ে হেফজ শেষ করেন। হেফজ শেষে হেদায়াতুন্নাহু কিতাব পড়ার পর তিন বছর (১৯৬২-৬৪) পাকিস্তানের লাহোরে অবস্থিত তাজবিদুল কোরআন মাদ্রাসায় কারি ইহসান আহমদ থানভী (রহ.) ও কারি শাকের আহমদ (রহ.)-এর কাছে ইলমুল কেরাত পড়েন। পাকিস্তানে থাকা অবস্থায় তার আব্বার ইন্তেকাল হয়।

১৯৬৫ সালে পাকিস্তান থেকে ফিরে খুলনা শিরোমণি মাদ্রাসায় শিক্ষকতা শুরু করেন। ওই বছরই তিনি বাগেরহাট জেলার রামপাল নিবাসী মরহুম মাওলানা আতহারুল ইসলাম খানের বড় মেয়ে আমিনা খাতুনের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন।

এখন থেকে ৬১ বছর আগে বাগেরহাটের মতো একটি প্রত্যন্ত এলাকা থেকে ইলমে দ্বীন শিক্ষার জন্য ঢাকা-পাকিস্তান গমন সোজা কথা নয়। তখনকার আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতি, যোগাযোগ ও যাতায়াত ব্যবস্থার প্রতিকূলতা জয় করতে সক্ষম হন শুধু কোরআনের ভালোবাসায়। নানা কারণে শিক্ষা জীবনের আনুষ্ঠানিক সফল পরিসমাপ্তি তার হয়ে ওঠেনি। এই না পাওয়াকে তিনি অনুপ্রেরণা হিসেবে গ্রহণ করে মাদ্রাসায় শিক্ষকতা শুরু করেন। শিক্ষকতায় তার একনিষ্ঠতা, আন্তরিকতা তাকে সাফল্য এনে দেয়। তিনি পরিচিতি পেয়েছেন, কিন্তু থেমে যাননি, এই পরিচয়কে দুনিয়ার পদন্ডপদবি লাভ ও সহায়-সম্পত্তি উপার্জনের হাতিয়ার বানাননি। তার স্বপ্ন ও ধ্যান ছিল ইসলামকে বিজয়ীরূপে দেখা। সমাজের আনাচে-কানাচে কোরআনের শিক্ষা প্রসার ঘটানো।

ঢাকার বিভিন্ন মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার সূচনালগ্ন থেকে ছিলেন। গেণ্ডারিয়া জামালুল কোরআন মাদ্রাসার অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা তিনি, এর নামকরণও তার। ১৯৭০ সালে প্রতিষ্ঠিত জামিয়া হোসাইনিয়া ইসলামিয়া আরজাবাদের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে তার ভূমিকা রয়েছে। স্বাধীনতার পক্ষে অবস্থান নেওয়ায় ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় বিহারিরা আরজাবাদ মাদ্রাসা জ্বালিয়ে দেয়। তখন তিনি সতীশ সরকার রোড, জোরপুল লেন মসজিদে নামাজ পড়াতেন। সেখানে একদিন মুক্তিযোদ্ধাদের সফলতার জন্য দোয়া করলে রাজাকাররা তাকে মেরে ফেলার চক্রান্ত করে। পরে মসজিদের মোতোয়ালি রাতের আঁধারে তাকে নিরাপদে সরিয়ে দেন। ওই সময় তিনি কিছুদিন চট্টগ্রামের শোলকবহর মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করেন। স্বাধীনতা যুদ্ধের এক-দেড় বছর পর পুনরায় আরজাবাদ মাদ্রাসায় যোগ দেন।

যাত্রাবাড়ী মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার পর সেখানে কিছুদিন শিক্ষকতা করেন। পরে ১৯৭৭ থেকে ১৯৮৭ পর্যন্ত ফরিদাবাদ মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করেন। ১৯৮৮ সালের জানুয়ারিতে পুনরায় আরজাবাদ ফিরে আসেন। এখন পর্যন্ত তিনি আরজাবাদেই শিক্ষকতা করছেন। বার্ধক্যজনিত নানাবিধ অসুস্থতার দরুন তিনি বাসা থেকে খুব একটা বের হন না। তার পরও নিয়ম করে মাদ্রাসায় যাওয়ার চেষ্টা করেন।

সাদামাটা জীবনের অধিকারী কারি আবদুল খালিক কখনো সহায়-সম্পদের দিকে আগ্রহী হননি। হাজার হাজার ছাত্রই তার কাছে সাত রাজার ধন। আশির দশক পর্যন্ত তার নিজ গ্রামে কোনো কওমি মাদ্রাসা ছিল না। এমনকি এখনো ওই এলাকার মানুষ কওমি মাদ্রাসাকে ‘খারেজি’ মাদ্রাসা বলে ডাকে। এমন পরিবেশে তিনিই প্রথম মাদ্রাসা হোসাইনিয়া ইসলামিয়া মৌলভীরহাট ও সায়্যিদ আরশাদ মাদানি মাদ্রাসাতুল বানাত নামে দুটি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন। মাদানি পরিবারের প্রতি নিঃস্বার্থ ভালোবাসার কারণে সায়্যিদ আসআদ মাদানি (রহ.), সায়্যিদ আরশাদ মাদানি ও সায়্যিদ আসজাদ মাদানিও তাকে ভালোবেসে, দুর্গম এলাকায় অবস্থিত তার প্রতিষ্ঠানে একাধিকবার সফর করেছেন।

১৯৮০ সালে দক্ষিণ চিংড়াখালী গ্রামে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার সময় তিনি উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত নিজের ভিটেমাটিসহ ঘরটি মাদ্রাসার জন্য ওয়াকফ করে দিয়ে স্ত্রী এবং ছোট ছোট ৬ সন্তানকে নিজের চাচার ঘরে রেখে ঘর খুলে মাদ্রাসার ঘর নির্মাণের জন্য নিয়ে যান। পরবর্তীতে তার শ্বশুর জায়গার দাম পরিশোধ করে নতুন করে ঘর তুলে দেন। সম্পদ বলতে তার এতটুকুই।

কারি আবদুল খালিকের নয় সন্তান। ছয় ছেলে, তিন মেয়ে। বড় ছেলে হাফেজে কোরআন। পরের চারজন মাওলানা। দুই মেয়ের একজন আলেম। দুই জামাতার একজন দারুল উলুম দেওবন্দ পড়–য়া আলেম, অন্যজন মুফতি।
তৃতীয় মেয়ে হেফজ শেষ করার পর এবং এক ছেলে ১ বছর বয়সে ইন্তেকাল করে জান্নাতের মেহমান হয়েছেন। এখন সাত সন্তান নিয়ে তার সংসার। কারি সাহেবের সন্তান ও নাতি-নাতনিদের মাঝে হাফেজে কোরআন ১০ জন, মাওলানা ৯ জন, (দাওরা শেষ করে) বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চতর শিক্ষা লাভকারী ২ জন। বর্তমানে কারি সাহেবের পরিবারের তৃতীয় প্রজন্মের ১৫ জন মাদ্রাসায় পড়াশোনা করছে। কারি আবদুল খালিক শুধু শিক্ষকতাতেই মনোনিবেশ করেননি। সুলুক-তাসাউফের মেহনতও করেছেন। প্রথমে সায়্যিদ আসআদ মাদানি (রহ.) ও পরে সায়্যিদ আরশাদ মাদানির হাতে বায়াত হন। এদিকে আরজাবাদ মাদ্রাসার শায়খুল হাদিস মুফতি তাজুল ইসলামও তাকে খেলাফত প্রদান করেছেন। দীর্ঘ কর্মময় জীবনে তিনি বহু বুজুর্গের সান্নিধ্য পেয়েছেন।

ষাটের দশকে পড়াশোনার জন্য পাকিস্তান সফর করেছেন। এ ছাড়া একাধিকবার ভারত সফর করেছেন। পবিত্র হজব্রত পালনের উদ্দেশে তিনি সৌদি আরবও গমন করেছেন। আজীবন প্রতিবাদী চেতনার কারি আবদুল খালিক ওস্তাদ হিসেবে মোজাহেদে মিল্লাত আল্লামা শামসুদ্দীন কাসেমীর সান্নিধ্য পেয়েছেন। আল্লামা কাসেমীর নেতৃত্বে ইসলামবিরোধী নানাবিধ কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে অংশগ্রহণ করেছেন। জেনারেল হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের আমলে ১৯৮৬ সালে গুলিস্তানে গোলাপ শাহ মসজিদ ভাঙার প্রতিবাদে তৌহিদি জনতার আন্দোলন চলাকালে তিনি মসজিদের স্থলে খুতবা পাঠের সময় পুলিশের বেয়নেট চার্জে রক্তাক্ত হন।

রাষ্ট্রীয়ভাবে কোনো শিক্ষাচুক্তি না থাকায় বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের ভারতের দেওবন্দ মাদ্রাসায় ভর্তির জন্য দেওবন্দ কর্র্তৃক মনোনীত নির্দিষ্ট ব্যক্তিদের কাছ থেকে সত্যায়নপত্র নিতে হয়। বিগত ১৮ বছর ধরে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের সত্যায়নপত্র দাতাদের একজন কারি আবদুল খালিক আসআদী। এ ছাড়া গত চার দশক ধরে বাংলাদেশে সায়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানি (রহ.)-এর পরিবারের সদস্যদের দ্বীনি সফরের ব্যবস্থাপনায় জড়িত।

স্পষ্টবাদী ও আমানতদার হিসেবে যথেষ্ট সুনাম রয়েছে তার। পরিচিত যে কেউ তাকে একবাক্যে দ্বীনের একজন নিঃস্বার্থ খাদেম হিসেবে অভিহিত করেন। নিজের আত্মীয়-স্বজন ও পরিচিতদের অনেকেই তার মাধ্যমে শিক্ষার সুযোগ পেয়েছে। তার মাধ্যমে আর্থিক সাহায্য পেয়ে অসংখ্য পরিবার স্বাবলম্বী হলেও তিনি ছয় দশক ধরে ঢাকায় বাস করলেও এখনো ভাড়া বাসায় থাকেন। ঢাকায় তার কোনো সহায়-সম্পদ নেই এবং গ্রামেও কোনো ফসলি জমিজমা নেই। সারাজীবন মসজিদন্ডমাদ্রাসা, দ্বীনি সংগঠন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম এবং খতমে নবুওয়ত আন্দোলনের পেছনে নিজের সময়, শ্রম ও মেধা ব্যয় করছেন।

কারি আবদুল খালিকের মতো নিঃস্বার্থ মানুষ এ সময়ে বিরল। ছাত্র অন্তঃপ্রাণ এই দরদি শিক্ষকের স্নেহ, মায়া-মমতা আর ভালোবাসার ফসল হিসেবে দেশের আনাচে-কানাছে ছড়িয়ে আছে হাজার হাজার আলেম, হাফেজ ও কারি। আলোকিত এক সমাজের দিকপাল তিনি। দোয়া করি, আল্লাহতায়ালা তাকে সুস্থতার সঙ্গে দ্বীনি খেদমতে নিয়োজিত থাকার তওফিক দান করুন। তার স্বপ্নগুলো আলোর মুখ দেখুক।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category